তিস্তা নদী

Advertisements
Tista River

তিস্তা নদী

তিস্তা নদী বাংলাদেশ-ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী।এটি ভারতের সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত একটি নদী। তিস্তা সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি বিভাগের প্রধান নদী। একে সিকিম ও উত্তরবঙ্গের জীবনরেখাও বলা হয়। সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার পর বাংলাদেশে প্রবেশ করে তিস্তা ব্রহ্মপুত্র নদের সঙ্গে মিলিত হয়েছে।

তিস্তা নদী কোন জেলায় অবস্থিত?

তিস্তা নদী বাংলাদেশ-ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী। এটি ভারতের সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত একটি নদী। তিস্তা সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি বিভাগের প্রধান নদী। একে সিকিম ও উত্তরবঙ্গের জীবনরেখাও বলা হয়।

তিস্তা নদীর মোহনা কোথায়?

সিকিম হিমালয়ের ৭,২০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত চিতামু হ্রদ থেকে এই নদীটি সৃষ্টি হয়েছে। এটি দার্জিলিং -এ অবস্থিত শিভক গোলা নামে পরিচিত একটি গিরিসঙ্কটের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। দার্জিলিং পাহাড়ে তিস্তা একটি বন্য নদী এবং এর উপত্যকা ঘনবনে আচ্ছাদিত। পার্বত্য এলাকায় এর নিষ্পাশন এলাকার পরিমাণ মাত্র ১২,৫০০ বর্গ কিলোমিটার।

তিস্তা নদীর পূর্ব অংশ কি নামে পরিচিত?

তিস্তা নদীর পূর্ব দিকের পার্বত্য অঞ্চল: তিস্তার পূর্বদিকে রয়েছে দুরবিনদারা পর্বত। এই পর্বতটি কালিম্পং শহর এর ঢালে অবস্থিত। কালিম্পং থেকে দুরবিনদারা পর্বতটি ক্রমশ নীচু হয়ে পূর্বদিকে জলঢাকা নদীর উপত্যকার দিকে এগিয়ে গেছে । এই অঞ্চলে দার্জিলিং হিমালয়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ ঋষিলা অবস্থিত।

তিস্তা নদীর পূর্ব অংশের পার্বত্যভূমির উচ্চতা অনেকটাই কম । এই অংশে অবস্থিত কালিম্পং, পেডং । এই অংশের দুটি প্রধান শৈলশিরা হলোএই অংশের দুটি প্রধান শৈলশিরা হলো দুরবিনদারা ও চোলা ।

তিস্তা নদীর পশ্চিমভাগ কে কি বলা হয়?

ডুয়ার্স

তিস্তা কোন নদীর উপনদী?

তিস্তা নদী ব্রহ্মপুত্র নদীর উপনদী। তিস্তা নদী, যেটি পূর্ব হিমালয় পর্বতমালায় উত্থিত হয় এবং বঙ্গোপসাগরে পতিত হওয়ার পূর্বে ভারতের সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়, এটির দৈর্ঘ্য হল 315 কিলোমিটার।

তিস্তা নদীর পশ্চিম দিকে কি কি পর্বত রয়েছে ?

সিঙ্গালিলা পর্বতশ্রেণী ও দার্জিলিং শৈলশিরা

সিঙ্গালিলা পর্বত শ্রেণী:

উত্তরের সিকিম ও দার্জিলিং জেলার সীমানায় এবং পশ্চিমের নেপাল সীমান্তে অবস্থিত সিঙ্গালিলা পর্বত শ্রেণী পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং জেলাকে নেপাল থেকে পৃথক করেছে । এই পর্বত শ্রেণীর চারটি প্রধান উচ্চতা বিশিষ্ট পর্বত শৃঙ্গ হল – সান্দাকফু , ফালুট, সবরগ্রাম , টাংলু। এদের মধ্যে সান্দাকফু পশ্চিমবঙ্গের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ ।

দার্জিলিং শৈলশিরা :

উত্তরের পার্বত্য অঞ্চলের দক্ষিণ দিকের তরাই অঞ্চল থেকে খাড়াভাবে উত্তর দিকে প্রসারিত দার্জিলিং শৈলশিরা । এই শৈলশিরা কে ঘুমরেঞ্জও বলা হয় । এই শৈলশিরা মধ্যভাগে অবস্থিত প্রধান শৃঙ্গ হল টাইগার হিল ।

ভারতের উচ্চতম জলপ্রপাত এর নাম কি?

আরো পড়ো:

দিল্লির সুলতান সাম্রাজ্য

Share the post
Advertisements

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Advertisements
Button
WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now
Instagram Group Join Now